“পেঙ্গুইন মেলা – ২০১৪” — বরিশাল পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট

মুক্ত সফটওয়্যার আন্দোলন একটি সামাজিক আন্দোলন যার উদ্দেশ্য কম্পিউটার ব্যবহারকারীর অধিকার সংরক্ষণ করা। এই উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের লক্ষ্যে মুক্ত সফটওয়্যার আন্দোলন, মুক্ত সফটওয়্যার তৈরি করতে, ব্যবহার করতে এবং মানোন্নয়ন করতে উৎসাহ প্রদান করে। “সফটওয়্যার চোর” অপবাদ থেকে নিজের প্রানের প্রিয় এই বাংলাদেশকে কালিমামুক্ত করতে এবং সফটওয়্যার প্রযুক্তিতে স্বনির্ভর ও মুক্তপ্রযুক্তি নির্ভর বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে মুক্ত সফটওয়্যার, লিনাক্স ও উন্মুক্ত সোর্স ভিত্তিক সফটওয়্যারকে ছড়িয়ে দেবার প্রত্যয়ে মুক্ত প্রযুক্তি ভিত্তিক সফটওয়্যার, লিনাক্স এবং বিভিন্ন সেবাসমূহ নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে এফওএসএস বাংলাদেশ (ফাউন্ডেশন ফর ওপেন সোর্স সলিউশনস বাংলাদেশ)।

উন্মুক্ত প্রযুক্তি ও মুক্ত সফটওয়্যার বিষয়ে এফওএসএস বাংলাদেশ এর জনসচেতনতামূলক একটি আয়োজন “পেঙ্গুইন মেলা”। আসন্ন “পেঙ্গুইন মেলা” টি অনুষ্ঠিত হবে আগামী ৭ই সেপ্টেম্বর ২০১৪ইং, রবিবার সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা ৩০মিনিট অবদি বরিশাল বিভাগে, বরিশাল পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের মিলনায়তনে।

উক্ত অনুষ্ঠানে থাকছে —
# সফটওয়্যার ও সফটওয়্যার পাইরেসি বিষয়ক আলোচনা
# সফটওয়্যার পাইরেসি থেকে মুক্ত হবার উপায় নিয়ে বিশদ আলোচনা
# মুক্ত সফটওয়্যার, ওপেনসোর্স ও জিএনইউ-লিনাক্স ইত্যাদি বিষয়ে আলোচনা
# পাশাপাশি আরো রয়েছে অংশগ্রহনকারী দর্শকদের সাথে মতামত বিনিময় ও সরাসরি আলোচনা।
# আয়োজনের শেষাংশে থাকছে জিএনউউ/লিনাক্স ডিস্ট্রো ইন্সটলেশন এবং ব্যবহার সহযোগীতার ব্যবস্থা, যেখানে জিএনইউ-লিনাক্স ভিত্তিক বিভিন্ন ডিস্ট্রোর আইএসও পেনড্রাইভে সংগ্রহ ও ইন্সটল করিয়ে নেয়া যাবে।

আয়োজনে যৌথভাবে সহযোগীতা দিচ্ছে বরিশাল পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট (বিপিআই) ও বরিশাল সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন টেকনোলজি (বিএসআইটি) কর্তৃপক্ষ।

আয়োজন পরবর্তী সংবাদ প্রতিবেদন —
উন্মুক্ত প্রযুক্তি ও মুক্ত সফটওয়্যার বিষয়ে এফওএসএস বাংলাদেশ এর জনসচেতনতামূলক একটি আয়োজন “পেঙ্গুইন মেলা” অনুষ্ঠিত হয়ে গেলো আজ ৭ই সেপ্টেম্বর ২০১৪ইং, রবিবার বরিশাল বিভাগে, বরিশাল পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের মিলনায়তনে। উক্ত অনুষ্ঠানে সফটওয়্যার পাইরেসি থেকে মুক্ত হবার উপায়, মুক্ত সফটওয়্যার, ওপেনসোর্স ও জিএনইউ-লিনাক্স ইত্যাদি বিষয়ে আলোচনার পাশাপাশি আরো ছিলো অংশগ্রহনকারী দর্শকদের সাথে মতামত বিনিময় ও সরাসরি আলোচনা। আয়োজনে অংশ নেন বরিশাল পলিটেকনিক এর অধ্যক্ষ প্রকৌশলী ড. নুরুল ইসলাম, কম্পিউটার বিভাগীয় প্রধান মোঃ শাখাওয়াত হোসেন, অন্যান্য বিভাগীয় প্রধান ও শিক্ষকগন এবং বিএসআইটি’র প্রশিক্ষক এস এম হাবিবুর রহমান। আয়োজনে মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন এফওএসএস বাংলাদেশ এর মহাসচিব সাজেদুর রহিম জোয়ারদার রিং। আয়োজনে আরো বক্তব্য রাখেন এফওএসএস বাংলাদেশ এর স্বেচ্ছাসেবক সফিকুর রহমান পল্লব এবং সরাসরি মত বিনিময়কালে অংশ নেন উপস্থিত শিক্ষক ও শিক্ষার্থীবৃন্দ।

প্রায় দুইশতাধিক ছাত্র-ছাত্রীর উপস্থিতিতে সকাল ১০টা থেকে দুপুর ২টা অবদি চলা এ আয়োজনের শেষাংশে ছিলো জিএনউউ/লিনাক্স ডিস্ট্রো ইন্সটলেশন এবং ব্যবহার সহযোগীতার ব্যবস্থা। এছাড়াও ছিলো জিএনইউ-লিনাক্স ভিত্তিক বিভিন্ন ডিস্ট্রোর আইএসও পেনড্রাইভে সংগ্রহ ও ইন্সটল করিয়ে নেয়ার সুযোগ। আয়োজনে যৌথভাবে সহযোগীতা দিয়েছে বরিশাল পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট (বিপিআই) ও বরিশাল সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন টেকনোলজি (বিএসআইটি) কর্তৃপক্ষ।

আয়োজনের ছবির সংকলন।

“লিনাক্স” কার্নেলের ২৩তম বর্ষপূর্তি উদযাপন

১৯৯১ সালের ২৫শে আগস্ট, হেলসিংকি বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য প্রযুক্তির এক ছাত্র লিনুস টরভ্যাল্ডস উন্মুক্ত সোর্স ভিত্তিক কার্নেল ”লিনাক্স” প্রকাশ করেন। সেই থেকে আজ অবধি লিনাক্স ভিত্তিক অপারেটিং সিস্টেমসমূহ সারা বিশ্বের সার্ভারের জগৎটা দাপটের সাথেই চষে বেড়াচ্ছে। লিনাক্স ভিত্তিক অপারেটিং সিস্টেমগুলো এখন আর শুধুই সার্ভারের জগতেই সীমাবদ্ধ নয়। ডেস্কটপ, ট্যাবলেট পিসি, মুঠোফোন কিংবা নিত্তনৈমিত্তিক ব্যবহারের প্রযুক্তি যন্ত্রাংশ সবখানেই এর বিচরন ইদানিংকালে বেশ ঈর্ষণীয়। এই বিষয়টা প্রযুক্তিপ্রেমী সব বাংলাদেশী কে জানাতে, বোঝাতে এবং প্রযুক্তির দুনিয়ায় লিনাক্স ভিত্তিক অপারেটিং সিস্টেমের বীরত্বপূর্ণ সাফল্য গাঁথার কিছু ইতিহাস সবার সামনে তুলে ধরার লক্ষ্যে, বৈশ্বিক আয়োজনসমূহের সাথে তাল মিলিয়ে, ফাউন্ডেশন ফর ওপেন সোর্স সলিউশনস বাংলাদেশ (Foundation for Open Source Solutions Bangladesh) বা এফওএসএস বাংলাদেশ (FOSS Bangladesh) এ বছরের ২৫শে আগস্ট ২০১৪ইং, সোমবার ঢাকার বারিধারায় অবস্থিত জামালপুর টুইন টাওয়ারস্থ ইউনিভার্সিটি অব ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড সায়েন্সেস (ইউআইটিএস) এর মিলনায়তনে, “লিনাক্স ডে – ২০১৪” – বাংলাদেশ শিরোনামে “লিনাক্স” কার্নেলের ২৩তম বর্ষপূর্তি উদযাপন করতে যাচ্ছে।

সকাল ১১টায় আয়োজন শুরু হয়ে বিকাল ৫টা অবদি দিনব্যাপী বিভিন্ন ধরনের লিনাক্স ডিস্ট্রোর ইতিহাস আর চিত্রসহ ডঙ্গল, ফেস্টুন, ব্যানার নিয়ে প্রদর্শনী চলবে এবং এ আয়োজন সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে। দিনব্যাপী আয়োজনে আরো থাকবে উন্মুক্ত প্রযুক্তি, ওপেন সোর্স এবং লিনাক্স নিয়ে এফওএসএস বাংলাদেশ এবং দেশী-বিদেশী বিভিন্ন সংগঠনের সেবামূলক কাজকর্মের নানারকমের ভিডিও চিত্র প্রদর্শনী, আগত দশর্কদের সাথে মত বিনিময় এবং গঠনমূলক আলোচনা অনুষ্ঠান। আয়োজনে বক্তব্য রাখবেন বাংলাদেশের বিভিন্ন মুক্তপ্রযুক্তি প্রেমী ব্যক্তিবর্গ ও আমন্ত্রিত অতিথিগন।

এছাড়াও আয়োজনস্থলে বিভিন্ন জনপ্রিয় লিনাক্স ডিস্ট্রোগুলোর পেনড্রাইভ বা পছন্দের মিডিয়াতে অথবা সিডি/ডিভিডিতে বিতরনের ব্যবস্থা সহ ইন্সটল ও ব্যবহারিক সহায়তা সেবা বুথের পরিকল্পনা রয়েছে। আগ্রহী সকলেই সাদরে আমন্ত্রিত।

আয়োজন পরবর্তী তথ্য (২৫শে আগষ্ট ২০১৪ইং)

সকাল ১১টা থেকে শুরু হয়ে বিকাল ৫টা ৩০মিনিট অবদি এ আয়োজনে ছিলো লিনাক্স ও লিনাক্স ভিত্তিক বিভিন্ন ডিস্ট্রোর ইতিহাস, উন্মুক্ত প্রযুক্তি, ওপেন সোর্স এবং লিনাক্স নিয়ে এফওএসএস বাংলাদেশ এবং দেশী-বিদেশী বিভিন্ন সংগঠনের সেবামূলক কাজকর্মের চলচ্চিত্র প্রদর্শনী, আগত দশর্কদের সাথে মত বিনিময় এবং গঠনমূলক আলোচনা। বিশ্ববিদ্যালয় ও অতিথি দর্শক মিলিয়ে মোট ষাটের অধিক উপস্থিতির এ আয়োজনে বক্তব্য রাখেন ইউনিভার্সিটি অব ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড সায়েন্সেস এর উপাচার্য ডঃ মুহম্মদ সামাদ, তথ্যপ্রযুক্তি ও কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগীয় প্রধান ডঃ সুপ্রতীপ ঘোষ, কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের শিক্ষক আল ইমতিয়াজ, এফওএসএস বাংলাদেশের মহাসচিব জনাব সাজেদুর রহিম জোয়ারদার, সংগঠনের স্বেচ্ছাসেবী সদস্য শরীফ আহম্মেদ মল্লিক, সফিকুর রহমান পল্লব, রেদোয়ান হাসান, মজিলা বাংলাদেশ এর স্বেচ্ছাসেবক আশিকুর রহমান নূর ও আনাম আহমেদ সহ বিভিন্ন মুক্তপ্রযুক্তি প্রেমী ব্যক্তিবর্গ ও আমন্ত্রিত বিশেষ অতিথিগন।

এছাড়াও আয়োজনস্থলে বিভিন্ন জনপ্রিয় লিনাক্স ডিস্ট্রোগুলোর পেনড্রাইভ বা পছন্দের মিডিয়াতে অথবা সিডি/ডিভিডিতে বিতরনের ব্যবস্থা সহ ইন্সটল ও ব্যবহারিক সহায়তা সেবা বুথের ব্যবস্থা ছিলো। আয়োজনের শেষাংশে বিকাল ৫টা ৩০মিনিট থেকে সন্ধ্যে ৬টা ৩০মিনিট অবদি আগ্রহীদেরকে এই সেবা দেন এফওএসএস বাংলাদেশের স্বেচ্ছাসেবকগণ।

আয়োজনের ছবির সংকলন।

“পেঙ্গুইন মেলা – ২০১৪” — ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়

মুক্ত সফটওয়্যার আন্দোলন একটি সামাজিক আন্দোলন যার উদ্দেশ্য কম্পিউটার ব্যবহারকারীর অধিকার সংরক্ষণ করা। এই উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের লক্ষ্যে মুক্ত সফটওয়্যার আন্দোলন, মুক্ত সফটওয়্যার তৈরি করতে, ব্যবহার করতে এবং মানোন্নয়ন করতে উৎসাহ প্রদান করে। “সফটওয়্যার চোর” অপবাদ থেকে নিজের প্রানের প্রিয় এই বাংলাদেশকে কালিমামুক্ত করতে এবং সফটওয়্যার প্রযুক্তিতে স্বনির্ভর ও মুক্তপ্রযুক্তি নির্ভর বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে মুক্ত সফটওয়্যার, জিএনইউ/লিনাক্স ও উন্মুক্ত সোর্স ভিত্তিক সফটওয়্যার সেবাগুলোকে সকল প্রযুক্তিপ্রেমীর কাছে পৌঁছে দেবার প্রত্যয়ে মুক্ত প্রযুক্তি ভিত্তিক সফটওয়্যার, লিনাক্স এবং বিভিন্ন সেবাসমূহ নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে এফওএসএস বাংলাদেশ।

উন্মুক্ত প্রযুক্তি ও মুক্ত সফটওয়্যার বিষয়ে এফওএসএস বাংলাদেশ এর জনসচেতনতামূলক একটি আয়োজন “পেঙ্গুইন মেলা”। আসন্ন “পেঙ্গুইন মেলা” টি অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১৪ই জুলাই ২০১৪ইং, রোজ সোমবার সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা অবদি, ঢাকার মহাখালীতে অবস্থিত ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় মিলনায়তনে।

# আয়োজনে থাকছে মুক্ত সফটওয়্যার, উন্মুক্ত প্রযুক্তি, জিএনইউ/লিনাক্স বিষয়ক আলোচনা
# বিভিন্ন মুক্ত সফটওয়্যার এবং জিএনইউ/লিনাক্স বিষয়ক তথ্যচিত্র প্রদর্শনী।
# আরো থাকছে ”ইনস্টলেশন ও ব্যবহারিক সহযোগীতা সেবা বুথ”। যেখানে আমাদের স্বেচ্ছাসেবকগণ আয়োজনে অংশগ্রহনকারীদের পছন্দ অনুসারে তাঁদের ল্যাপটপ কিংবা নেটবুকে লিনাক্স ভিত্তিক বিভিন্ন ডিস্ট্রো ইন্সটল এবং ইন্সটল পরবর্তী নিত্য প্রয়োজনীয় সেটিংসগুলো করে দেবেন। (অনলাইনে ফর্মপূরনকারীরা অগ্রাধিকার পাবেন।)
# এছাড়াও আয়োজনস্থলে থাকবে লিনাক্স ভিত্তিক বিভিন্ন জনপ্রিয় ডিস্ট্রোগুলো পেনড্রাইভে/পছন্দের মিডিয়াতে বিতরনের ব্যবস্থা।

আয়োজনে সার্বিক সহযোগীতা দিচ্ছে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় কম্পিউটার ক্লাব।

আয়োজনে আপনার অংশগ্রহণ নিশ্চিত করে এই লিংক থেকে প্রাপ্ত ফর্মটি আপনার তথ্য দিয়ে পূরন করে দিন।

লিনাক্স মিন্ট ১৭ “কিয়ানা”র প্রকাশনা উদযাপন

বিগত ২৫শে জুন ২০১৪ইং রবিবার, ঢাকার বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় অবস্থিত প্লট-১৬, ব্লক-বি, আফতাবউদ্দিন আহমেদ স্মরনীতে অবস্থিত ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ এ দুপুর ১২টা থেকে দুপুর ২টা ব্যাপী আয়োজিত হয়ে গেলো বর্তমান সময়ে বিশ্বের সবচাইতে জনপ্রিয় জিএনইউ/লিনাক্স ডিস্ট্রো “লিনাক্স মিন্ট” এর প্রকাশনা উদযাপনের আয়োজন। “লিনাক্স মিন্ট” এর সাম্প্রতিকতম সংস্করন ১৭ প্রকাশিত হয়েছে বিগত ৩০শে মে, শুক্রবার দিবাগত রাত্রে আর এর সাংকেতিক নাম রাখা হয়েছে-”কিয়ানা”। লক্ষ্যনীয় যে, “লিনাক্স মিন্ট” কোন ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান কর্তৃক তৈরী করা হয় না, বরংচ এটি তৈরী হয়ে থাকে সারা বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে থাকা বিভিন্ন অবদানকারীদের সম্পূর্নই নিজস্ব প্রচেষ্টা আর স্বেচ্ছাশ্রমে।

Read More

“পেঙ্গুইন মেলা – ২০১৪” — ইউনিভার্সিটি অব ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড সায়েন্সেস

মুক্ত সফটওয়্যার আন্দোলন একটি সামাজিক আন্দোলন যার উদ্দেশ্য কম্পিউটার ব্যবহারকারীর অধিকার সংরক্ষণ করা। এই উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের লক্ষ্যে মুক্ত সফটওয়্যার আন্দোলন, মুক্ত সফটওয়্যার তৈরি করতে, ব্যবহার করতে এবং মানোন্নয়ন করতে উৎসাহ প্রদান করে। “সফটওয়্যার চোর” অপবাদ থেকে নিজের প্রানের প্রিয় এই বাংলাদেশকে কালিমামুক্ত করতে এবং সফটওয়্যার প্রযুক্তিতে স্বনির্ভর ও মুক্তপ্রযুক্তি নির্ভর বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে মুক্ত সফটওয়্যার, জিএনইউ/লিনাক্স ও উন্মুক্ত সোর্স ভিত্তিক সফটওয়্যার সেবাগুলোকে সকল প্রযুক্তিপ্রেমীর কাছে পৌঁছে দেবার প্রত্যয়ে মুক্ত প্রযুক্তি ভিত্তিক সফটওয়্যার, লিনাক্স এবং বিভিন্ন সেবাসমূহ নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে এফওএসএস বাংলাদেশ।

উন্মুক্ত প্রযুক্তি ও মুক্ত সফটওয়্যার বিষয়ে এফওএসএস বাংলাদেশ এর জনসচেতনতামূলক একটি আয়োজন “পেঙ্গুইন মেলা”। আসন্ন “পেঙ্গুইন মেলা” টি অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১২ই জুন ২০১৪ইং, রোজ বৃহস্পতিবার বিকাল ৩টা থেকে বিকাল ৫টা ৩০মিনিট অবদি, ঢাকার গুলশান -২ এ প্রগতি সরনীর জামালপুর টুইন টাওয়ারে অবস্থিত ইউনিভার্সিটি অব ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড সায়েন্সেস এর ৬ষ্ঠ তলায়, হলরুমে।

# আয়োজনে থাকছে মুক্ত সফটওয়্যার, উন্মুক্ত প্রযুক্তি, জিএনইউ/লিনাক্স বিষয়ক আলোচনা
# বিভিন্ন মুক্ত সফটওয়্যার এবং লিনাক্স নিয়ে তথ্যভিত্তিক তথ্য চিত্র প্রদর্শনী।
# আরো থাকছে ”ইনস্টলেশন ও ব্যবহারিক সহযোগীতা সেবা বুথ”। যেখানে আমাদের স্বেচ্ছাসেবকগণ আয়োজনে অংশগ্রহনকারীদের পছন্দ অনুসারে তাঁদের ল্যাপটপ কিংবা নেটবুকে লিনাক্স ভিত্তিক বিভিন্ন ডিস্ট্রো ইন্সটল এবং ইন্সটল পরবর্তী নিত্য প্রয়োজনীয় সেটিংসগুলো করে দেবেন। (অনলাইনে ফর্মপূরনকারীরা অগ্রাধিকার পাবেন।)
# এছাড়াও আয়োজনস্থলে থাকবে লিনাক্স ভিত্তিক বিভিন্ন জনপ্রিয় ডিস্ট্রোগুলো পেনড্রাইভে/পছন্দের মিডিয়াতে বিতরনের ব্যবস্থা।

আয়োজনে যৌথভাবে সার্বিক সহযোগীতায় ইউনিভার্সিটি অব ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড সায়েন্সেস এর কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগ এবং তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ দ্বয়।


আয়োজন পরবর্তী প্রতিবেদন:

সাম্প্রতিকতম “পেঙ্গুইন মেলা” টি অনুষ্ঠিত হয়ে গেলো বিগত ১২ই জুন ২০১৪ইং, রোজ বৃহস্পতিবার বিকাল ৩টা থেকে বিকাল ৫টা ৩০মিনিট অবদি, ঢাকার বারিধারায়, প্রগতি স্মরনীর জামালপুর টুইনটাওয়ারে অবস্থিত ইউনিভার্সিটি অব ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড সায়েন্সেস এর তৃতীয় তলার সম্মেলন কক্ষে। বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল এবং তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের যৌথ আয়োজন “জিরো ওয়ান ফেস্ট” এ, কতৃপক্ষের আমন্ত্রনে এই আয়োজনে অংশ নিয়ে দুইদিন ব্যাপী আয়োজনের প্রথমদিনে এফওএসএস বাংলাদেশ “পেঙ্গুইন মেলা” এবং দ্বিতীয় দিনে সারাদিন ব্যাপী, বিনামূল্যে সকলের জন্য “জিএনইউ/লিনাক্স ইন্সটল ও ব্যবহারিক সহযোগীতা সেবা”র আয়োজন করেছিলো।

সফটওয়্যার পাইরেসি থেকে মুক্ত হবার উপায়, মুক্ত সফটওয়্যার, ওপেনসোর্স ও জিএনইউ-লিনাক্স ইত্যাদি বিষয়ে আলোচনার পাশাপাশি আরো ছিলো অংশগ্রহনকারী দর্শকদের সাথে মতামত বিনিময় ও সরাসরি আলোচনা ও প্রশ্নোত্তর পর্ব। আয়োজনে বক্তব্য উপস্থাপন করেন এফওএসএস বাংলাদেশের মহাসচিব সাজেদুর রহিম জোয়ারদার, সাধারন পরিষদ সদস্য এবং মিডিয়া ব্যক্তিত্ব কায়েস খান এবং আফতাবুল ইসলাম, স্বেচ্ছাসেবী সদস্য জনাব সগীর হোসাইন খান এবং সাইফুল আলম।

পেঙ্গুইন মেলার শেষাংশে এবং দ্বিতীয় দিনের পুরোটা জুড়েই আগ্রহী সকলের জন্যে ছিলো জিএনউউ/লিনাক্স ডিস্ট্রো ইন্সটলেশন এবং ব্যবহার সহযোগীতার ব্যবস্থা। এছাড়াও ছিলো জিএনইউ-লিনাক্স ভিত্তিক বিভিন্ন ডিস্ট্রোর আইএসও পেনড্রাইভে সংগ্রহ করার ব্যবস্থা।

আয়োজনের ছবির সংকলন।

“ডিআরএম” বা “ডিজিটাল রেস্ট্রিকশনস ম্যানেজমেন্ট” প্রতিরোধ দিবস – ২০১৪

প্রযুক্তির দুনিয়ায় প্রযুক্তি ব্যবহারকারীদের অধিকার খর্ব করে এমন সব প্রযুক্তিকে প্রতিহত করতে এই বছরে এই দিবস আন্তর্জাতিকভাবে পালিত হচ্ছে। প্রযুক্তিভিত্তিক সেবা এবং পন্য প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানগুলো কর্তৃক সাধারন ব্যবহারকারীদের নিকট তথ্য প্রদান না করা এবং তথ্য/প্রযুক্তি প্রাপ্তি/ব্যবহারের ক্ষেত্রে সরাসরি/বিকল্প পন্থায় বাধাসৃষ্টিকারী প্রযুক্তি/ব্যবস্থাগুলোকে আমজনতার সামনে উপস্থাপন করতেই এই দিনটি পালন করা হয়।

২০১৩ইং বছরে আমরা এইচটিএমএল ৫ বা ওয়েব দুনিয়ার দখলদারীর উদ্দেশ্যে ইএমই বা এনক্রিপটেড মিডিয়া এক্সটেনশনস এবং ডিআরএম বা “ডিজিটাল রেস্ট্রিকশনস ম্যানেজমেন্ট” এর পরিকল্পনা ও বাস্তবায়ন রুখে দিতে এই দিনটি পালন করি। আগের বছরগুলোতে SOPA এবং PIPA প্রতিরোধে আমাদের সামগ্রিক আন্দোলনের কার্যকারীতা সবাই ইতোমধ্যেই দেখতে পাচ্ছেন এবং সেই প্রতিরোধের সুফলও ভোগ করছেন প্রযুক্তি ব্যবহারকারীরা, সকলেই।

আমরা এফওএসএস বাংলাদেশ পুরো বিশ্বের উন্মুক্ত মনা মানুষ ও প্রযুক্তিব্যবহারকারীদের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে এই দিনে, ঢাকার ধানমন্ডি মিরপুর রোডের ১০২শুক্রাবাদে অবস্থিত ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে সকাল ১০টা ৩০মিনিট থেকে দুপুর ১২টা ৩০মিনিট অবদি একটি জনসচেতনতামূলক আলোচনা সভা এবং তার পরপরই আয়োজনে অংশগ্রহণকারীর সকলকে সাথে নিয়ে মিনিট কুড়ি ব্যাপী একটি মানববন্ধন কর্মসূচী পালনের পরিকল্পনা করেছি। আশা রাখি আপনাদেরকে সহ দেশের সকল মুক্তমনা মানুষ এবং প্রযুক্তি ব্যবহারকারীদেরকে এই দিনে আমাদের সাথেই পাবো।

আমাদের সাথে সরাসরি এই মানববন্ধনে অংশ নিন এবং এই দুষ্ট ডিআরএম প্রতিরোধে আন্তর্জাতিকভাবে অংশ নিন। ডিআরএম বিষয়ে আরো বিস্তারিত জানতে দেখুন — http://www.defectivebydesign.org/what_is_drm


আয়োজনের ছবিসমূহের সংকলন

উবুন্টু ১৪.০৪ “ট্রাস্টি তাহ্‌র” এর প্রকাশনা উদযাপন

আগামী ১৭ই এপ্রিল ২০১৪ইং উবুন্টুর সাম্প্রতিকতম সংস্করণ ১৪.০৪ “ট্রাস্টি তাহ্‌র” সাংকেতিক নামে প্রকাশিত হবে। উবুন্টু’র প্রতিটি সংস্করণ প্রকাশিত হবার পরপরই বিশ্বের প্রায় প্রতিটি উবুন্টু লোকো (লোকো == লোকাল কমিউনিটি == দেশীয়/স্থানীয় ব্যবহারকারী, মানোন্নয়কারী, অনুবাদক) উবুন্টুর এই প্রকাশনাকে বিভিন্ন রকমের আনন্দ আয়োজনের মাধ্যমে উদযাপন করে থাকে। যার নামকরণ করা হয় — “উবুন্টু রিলিজ পার্টি” শিরোনামে। এটি একটি বৈশ্বিক আয়োজন বা গ্লোবাল ইভেন্ট অর্থাৎ এটি সারা বিশ্বেই পালিত হয়ে থাকে।

Read More

“পেঙ্গুইন মেলা – ২০১৪” — ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি

মুক্ত সফটওয়্যার আন্দোলন একটি সামাজিক আন্দোলন যার উদ্দেশ্য কম্পিউটার ব্যবহারকারীর অধিকার সংরক্ষণ করা। এই উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের লক্ষ্যে মুক্ত সফটওয়্যার আন্দোলন, মুক্ত সফটওয়্যার তৈরি করতে, ব্যবহার করতে এবং মানোন্নয়ন করতে উৎসাহ প্রদান করে। “সফটওয়্যার চোর” অপবাদ থেকে নিজের প্রানের প্রিয় এই বাংলাদেশকে কালিমামুক্ত করতে এবং সফটওয়্যার প্রযুক্তিতে স্বনির্ভর ও মুক্তপ্রযুক্তি নির্ভর বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে মুক্ত সফটওয়্যার, জিএনইউ/লিনাক্স ও উন্মুক্ত সোর্স ভিত্তিক সফটওয়্যার সেবাগুলোকে সকল প্রযুক্তিপ্রেমীর কাছে পৌঁছে দেবার প্রত্যয়ে মুক্ত প্রযুক্তি ভিত্তিক সফটওয়্যার, লিনাক্স এবং বিভিন্ন সেবাসমূহ নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে এফওএসএস বাংলাদেশ।

উন্মুক্ত প্রযুক্তি ও মুক্ত সফটওয়্যার বিষয়ে এফওএসএস বাংলাদেশ এর জনসচেতনতামূলক একটি আয়োজন “পেঙ্গুইন মেলা”। আসন্ন “পেঙ্গুইন মেলা” টি অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১২ই এপ্রিল ২০১৪ইং, রোজ শনিবার সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা ৩০মিনিট অবদি, ঢাকার ধানমন্ডির শুক্রাবাদে অবস্থিত ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি’র মূল ভবনের তৃতীয় তলায়, ইলেকট্রনিক্স অ্যান্ড কমিউনিকেশন প্রকৌশল বিভাগের সম্মেলন কক্ষে।

# আয়োজনে থাকছে মুক্ত সফটওয়্যার, উন্মুক্ত প্রযুক্তি, জিএনইউ/লিনাক্স বিষয়ক আলোচনা
# ”সফটওয়্যার মুক্তি আন্দোলন” ও বিভিন্ন মুক্ত সফটওয়্যার এবং লিনাক্স নিয়ে তথ্যভিত্তিক তথ্য চিত্র প্রদর্শনী।
# আরো থাকছে ”ইনস্টলেশন ও ব্যবহারিক সহযোগীতা সেবা বুথ”। যেখানে আমাদের স্বেচ্ছাসেবকগণ আয়োজনে অংশগ্রহনকারীদের পছন্দ অনুসারে তাঁদের ল্যাপটপ কিংবা নেটবুকে লিনাক্স ভিত্তিক বিভিন্ন ডিস্ট্রো ইন্সটল এবং ইন্সটল পরবর্তী নিত্য প্রয়োজনীয় সেটিংসগুলো করে দেবেন। (অনলাইনে ফর্মপূরনকারীরা অগ্রাধিকার পাবেন।)
# এছাড়াও আয়োজনস্থলে থাকবে লিনাক্স ভিত্তিক বিভিন্ন জনপ্রিয় ডিস্ট্রোগুলো পেনড্রাইভে, পছন্দের মিডিয়াতে এবং সিডি/ডিভিডিতে বিতরনের ব্যবস্থা।

আয়োজনে সহযোগীতা করছে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির সফটওয়্যার প্রকৌশল বিভাগ। আয়োজনে অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে এই লিংক থেকে প্রাপ্ত ফর্মে আপনার তথ্য দিন।

আয়োজনের ছবির সংকলন।

“হার্ডওয়্যার মুক্তি দিবস – ২০১৪” — বাংলাদেশ আয়োজন

মুক্ত হার্ডওয়্যার আন্দোলন একটি সামাজিক আন্দোলন যার উদ্দেশ্য যে কোন প্রযুক্তি ব্যবহারকারীর নিজ পছন্দ অনুযায়ী যে কোন হার্ডওয়্যার ক্রয় ও ব্যবহারের অধিকার সংরক্ষণ করা। এই উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের লক্ষ্যে মুক্ত হার্ডওয়্যার আন্দোলন, মুক্ত হার্ডওয়্যার তৈরি করতে, ব্যবহার করতে এবং মানোন্নয়ন করতে উৎসাহ প্রদান করে থাকে। বাংলাদেশেও এই আন্দোলনের বিস্তৃতি ও সুফলকে ত্বরান্বিত ও অর্থবহ করতে মার্চ মাসের তৃতীয় শনিবার, ১৫ই মার্চ “হার্ডওয়্যার মুক্তি দিবস” উদযাপনের পরিকল্পনা করা হয়েছে।

Read More

“একান্ত তথ্য সুরক্ষা দিবস – ২০১৪” — বাংলাদেশ উদযাপন

তথ্য প্রযুক্তি আমাদের জীবনধারনের অনেকাংশকে ইদানিংকালে বেশ বদলে দিয়েছে। আমরা বাস্তব জগত থেকে ভার্চুয়াল জগতেই নিজেদেরকে বেশি বেশি করে মানিয়ে নিয়েছি। আর সেই সুবাদে আমাদের অনেক একান্ত তথ্যই আমাদের সজান্তে কিংবা অজান্তে চলে গিয়েছে এবং যাচ্ছে সুবিশাল ভার্চুয়াল জগতে। আর এসব তথ্যের সংগ্রহকারী/সহযোগী হিসেবে কাজ করছে ফেসবুক, মাইক্রোসফট, অ্যাপল, গুগল, ইয়াহুর মত বড় বড় তথ্য প্রযুক্তি ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান।

আপনি আপনার পারিবারিক আয়োজনের ছবিগুলো আগ-পিছ কিছু চিন্তা না করেই ফেসবুকে সবার সাথে ভাগ করে নিচ্ছেন। কিন্তু আপনি কি চিন্তা করেছেন আপনার এই একান্ত তথ্য ছবি, ছবির পাত্র-পাত্রীরা, পরিবেশ কিংবা এই সবের একান্ত গোপনীয়তার বিষয়টুকু অনলাইনের এই জগতে কতটুকু সুরক্ষিত?

কিছুদিন আগে ঘটে যাওয়া একটা ঘটনা স্মরণ করিয়ে দেই। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনষ্টিটিউটের পাঁচ মেয়ে তাদের কনভোকেশনের দিন যে ছবি তুলে তা অনলাইনের মাধ্যমে এক রাজনৈতিক দলের উন্নয়নের বিলবোর্ডে চলে যায়। এই বিষয নিয়ে ঐ পাঁচ মেয়ের প্রত্যেকেই বিব্রত হয়েছে। এই ভাবে ব্যক্তিগত তথ্য কোথা থেকে কোথায় চলে যাচ্ছে, কিভাবে ব্যবহৃত হচ্ছে, আপনার ব্যক্তিগত তথ্য কেউ বিক্রি করছে কিনা তা কি কখনো ভেবে দেখেছেন?

জেনে রাখুন যে – ফেসবুকের আয়ের একটা বড় উৎস হল এঁর ব্যবহারকারীদের একান্ত ব্যক্তিগত তথ্যগুলোকে বিক্রি/ব্যবহার করে লব্ধ অর্থ। আপনি আপনার বন্ধুদের সাথে কি ধরনের লিংক আদান প্রদান করছেন, কোন ধরনের ওয়েব আপনাদের পছন্দ, কি খবার বেশী খেতে পছন্দ করেন এমন অনেক তথ্যই ফেসবুক বেচে দিচ্ছে বিভিন্ন বিপনন প্রতিষ্ঠানে।

আর ইয়াহু কিংবা গুগল? সে তো আপনার সার্চ ইন্টারেস্ট দেখেই কিন্তু আপনার ওয়েব পেইজে, আপনার মেইলের পাশাপাশি বিজ্ঞাপন নিয়ে হাজির হয়।

তাহলে নিশ্চয় বুঝতে পারছেন আপনার ব্যক্তিগত তথ্য এখন বাণিজ্যের প্রধাণ উপকরণ! আমাদের অসচেতনতাই এই কাজগুলোকে বাড়তে দিচ্ছে। তাই সবাইকে সচেতন করতে মজিলা ফাউন্ডেশন এই বছর ২৮শে জানুয়ারী তারিখ আন্তর্জাতিকভাবে পালন করতে যাচ্ছে “একান্ত তথ্য সুরক্ষা দিবস-২০১৪”। বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে আমরা, এফওএসএস বাংলাদেশ ঐ দিনে বাংলাদেশেও এই দিবসটি উদযাপন করতে যাচ্ছি। এই আয়োজনে সার্বিক সহযোগীতা দিচ্ছে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির সফটওয়্যার প্রকৌশল বিভাগ।

এই আয়োজনে আমরা সবার মাঝে যেভাবে একান্ত তথ্যের সুরক্ষা বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে চাই:
১। অনলাইনে কিভাবে ব্যক্তিগত তথ্যের সুরক্ষা ক্ষুন্ন হচ্ছে তা সম্পর্কে নিজ নিজ অভিজ্ঞতা উপস্থিতির মাঝে ছড়িয়ে দেয়া
২। একান্ত তথ্যের সুরক্ষার ক্ষেত্রে করণীয়গুলো সম্পর্কে আগ্রহী সবাইকে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ।
৩। উন্নত বিশ্বের দেশগুলোতে একান্ত তথ্য সুরক্ষার গুরুত্ব এবং আমাদের দেশে আইনগত রক্ষাবুহ্য সম্পর্কে ধারনা।

উন্নত দেশের যেসব প্রতিষ্ঠান ও সংস্থা এই আয়োজনের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে তাঁদের মধ্যে ক্যালিফোর্নিয়ার একান্ত তথ্য সুরক্ষা কার্যালয়, সাইবার ডাটা রিস্ক ম্যানেজারস, এডুকয, জর্জটাউন বিশ্ববিদ্যালয়, হ্যাভপ্রুফ ডট কম, ইন্ডিয়ানা বিশ্ববিদ্যালয়, কানাডার একান্ত তথ্য কমিশনারের কার্যালয়, রেপুটেশন ডট কম, হোগান লাভেলস, টিচপ্রাইভেসী এবং যুক্তরাজ্যের তথ্য কমিশনার কার্যালয় অন্যতম।

আয়োজনের সূচী: ২৮ জানুয়ারী ২০১৪ইং, মঙ্গলবার। সকাল ১০টা ৩০মিনিট থেকে দুপুর ১টা।
আয়োজনের স্থান: ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, শুক্রাবাদ, ঢাকা।

আশা করি আপনারা আয়োজনে উপস্থিত থেকে অনলাইনে আপনার একান্ত তথ্যের সুরক্ষার মত প্রয়োজনীয় বিষয়টি জেনে নিবেন। আয়োজনে আপনার উপস্থিতি নিশ্চিত করে এই লিংক থেকে প্রাপ্ত ফর্মে তথ্য দিয়ে সহায়তা করুন।


“একান্ত তথ্য সুরক্ষা দিবস – ২০১৪” – বাংলাদেশ উদযাপন পরিষদ